দীপ্ত প্রেরণা, প্রদীপ্ত পাঠ

লৌকিক এবং অলৌকিক স্পৃহায় মুগ্ধ অকষ্মাৎ এ মন
কৃতজ্ঞতায় আনত হয় যখন প্রশংসার পাহাড় গড়ে তোলো
ক্ষুদ্র এ মনের এক মুঠো উঠোনে বেড়ে ওঠো লাউ লতা যেন
তার পর আষ্ঠে-পৃষ্ঠে ধরে রাখো প্রাণিত প্রনোদনায়।

কবিতার উপমার উপকন্ঠে জেনো বাস তোমারও বরাবর
যেখানে চলে যায় পর্যটক প্রাণ আমার দ্বিধায় দ্বিখন্ডিত
দূরত্বের দুর্বিনে ধরা দাও যদিও, দূরনিয়ন্ত্রণের বোতাম
থাকে তোমারই হাতে তাই উচ্ছাসে থাকে উৎকন্ঠাও খানিকটা।

যখন স্মিত হেসে কবিতার শরীর স্পর্শ করো নান্দনিক অনুভবে
প্রথম প্রেমের পরশে কবিতাও কাঁপে সবিস্মিত সুখের আনন্দে
অনুসন্ধানী হৃদয় তোমার অকস্মাৎ পৌঁছে যায় কাব্যের অন্তরালে
যেখানে মানবী মন তোমার লুকোয় নিশ্চিন্তে এবং সংগোপনে ।

কাব্যলক্ষীকে নিয়ে রবীন্দ্রনাথের অহঙ্কার ছিলো অহরহ
বুঝিনি দীর্ঘ দিন কোন এ লক্ষী, কে-ই বা এই মানসী রবি-কবির
অকষ্মাৎ এখন যখন কবিতাকে নিয়ে তোমার অনুক্ষণ অনুবীক্ষণ
তখন বুঝি কে কবিতার অনুরাগি, কেই বা জ্বালায় প্রেরণার প্রদীপ ।

গণিতের অগণিত সমীকরণে পেয়ে যাই তখন শুধুই তোমায়
লক্ষ্য ও উপলক্ষ্যে একাকার হয়ে থেকো তুমি, অনন্য প্রার্থনায়।

২০শে জুলাই ২০১৬, ম্যারিল্যান্ড
Copyright@ anis ahmed

Comments

Leave a Reply