নিঃসঙ্গ অরিন্দম, অতএব…

অরিন্দম ভেবেছিল

করোনার এ করাল গ্রাসে

কে বা কারে আর ভালোবাসে

সঙ্গনিরোধতো এখন সঙ্গী-নিরোধই বটে।

দেখা হয়েছিল

অকস্মাত্ প্রায় জনশুন্য এক ফুটপাথে

মুখোশে আবৃত চিরচেনা অরণির সাথে

চোখ দেখেই চিনেছিল আবৃত সেই অবয়বকে।

অতএব অকষ্মাত্ 

থমকে দাঁড়ানো পরিচিত সেই পথ-পাশে

যেন জানান দেয়া কে কারে কত ভালবাসে

তার পর ইতিহাসের পরিব্রাজক হয়ে যায় উভয়ই ।

সেই পথে হেঁটে চলা  

অতঃপর একে একে ভালোবাসার উল্টালো পাতা

সমান্তরালে ভ’রে থাকা প্রত্যহই কবিতার খাতা

তার পর অনুজীবের অনুপ্রবেশে হঠাত্ রুদ্ধ হলো সব কথা ।

অপূর্ণ সে প্রেম

পূর্ণতা আর পেল কই, প্রাত্যহিক এ করুণা ক্রান্তিতে

পয়লা বৈশাখও আটকে গেল সেদিনের চৈত্র সংক্রান্তিতে

যেন ট্রাফিকের লাল সঙ্কেতে সংকটের শঙ্কা প্রত্যহই দিল দেখা।

অরণি-অরিন্দম

এখনও খোঁজে অনুজীববিহীন সবুজ সংকেত, অনর্গল ভালোবাসা

স্বপ্নের সীমানা ডিঙ্গিয়ে, মধ্যদিনে দেখে সে অন্য এক আলোর আশা ।

তেমনি সুদিনের প্রতীক্ষায় কাটে বেশি দিনের নিশীদিন চেয়ে থাকা।

অবশেষে জানে ওরা দুজনই, আসবে  সেই রৌদ্রকরোজ্জ্বল দিন

উভয়ই তখন শুধবে জানে সুদে-আসলে ভালোবাসার সেই ঋণ ।

২রা মে   ২০২১, ম্যারিল্যান্ড  

Copyright@anisahmed

Comments

Leave a Reply