খোকা, মুজিব ও বঙ্গবন্ধু

তুমি আসবার আগে মার্চের সতেরো ছিল
ক্যালেন্ডারের পাতায় একটা তারিখ কেবল
অঙ্কের সংখ্যার মতো নৈর্ব্যক্তিক এক সত্বা শুধু
বছর আসতো, বছর যেতো, সাত কিংবা সতেরো
সংখ্যার চেয়ে বড় করে দেখেনি বাঙালি কিংবা বিশ্ব
তখনও উপনিবেশের বেড়াজালে আবদ্ধ বাঙালি নিঃস্ব।

অকস্মাৎ ক্যালেন্ডারে ঘটে গেল এক বিপ্লব
সাত ও সতেরো মিশে গেল তোমার অস্তিত্বের সাথে
মধুমতির মুজিব এখন পদ্মা-মেঘনা যমুনা অবধি বিস্তৃত
বাংলাদেশের সাথে আশ্চর্য এক সমীকরণে সম্পন্ন তুমি ।
টুঙ্গিপাড়ার সেদিনের সেই খোকা রূপান্তরিত বঙ্গবন্ধুতে
পর্বতের উচ্চতায় যেমন, তেমনি নিমজ্জিত ভালোবাসার সিন্ধুতে।

জাতি থেকে জাতিরাষ্ট্রের স্বপ্নদ্রষ্টা তুমি, শতবর্ষ আগে কে জানতো
বেরিবেরি ব্যাধির বাধা পেরুনো মুজিবতো পেরুলো প্রতিবন্ধক আরো
ব্রিটিশ ঔপনিবেশিকতার অবসানে দেখা স্বপ্নরা সব একে একে
সহসাই ঊবে গেল হায়, পাকিস্তানি গোলামির নতুন এক জিঞ্জিরে
অতঃপর স্বপ্ন দেখা আবারও সবুজাভ এক স্বাধীন বাংলাদেশের
শুরু হলো আবারও সংগ্রামী এক সত্যের , এক নতুন রেষের।

ইতিহাসের সিঁড়ি বেয়ে ক্রমশই তোমার দৃঢ়-দৃপ্ত পদক্ষেপেণ
বাঙালির ভাষা , বাঙালির আশার প্রতীক ও প্রতিচ্ছবি হলে তুমি
স্বায়ত্ব শাসন থেকে স্বাধীনতার দূর্গম পথ বেয়ে হেঁটেছো নির্ভয়ে
জেলের জুলুমে , মৃত্যুর পরোয়ানাও, ভাঙতে পারেনি তোমার স্বপ্নপুরিকে
রুদ্ধ করতে পারেনি পাশব শক্তি সেই বজ্রকন্ঠকে কখনও
তারই ধ্বণি প্রতিধ্বণি শুনি আজও আমি এখনও ।

তোমার দৃপ্ত উচ্চারণে প্রদীপ্ত হয়েছে , সাড়ে সাতকোটি বাঙালির হৃদয় ।
তোমার অঙ্গুলির নির্দেশে তাই বাঙালি পেয়েছে সেই কাঙ্খিত বিজয়

সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালির শতবর্ষে তাই, তোমাকে জানাই সকৃতজ্ঞ অভিবাদন
তুমি না হলে পিতা, কে দিতো স্বাধীনতা, কেইবা ভাঙতো দাসত্বের বাঁধন।

১৭ই মার্চ ২০২০, ম্যারিল্যান্ড
Copyright@anisahmed.

Comments

Leave a Reply